Chatraleague, Islamic University unit


ক্যাম্পাস খুললেই কমিটি পুর্নাঙ্গ করতে চাই: সভাপতি -সাধারণ সম্পাদক


ক্যাম্পাস খুললেই কমিটি পুর্নাঙ্গ করতে চাই: সভাপতি -সাধারণ সম্পাদক

নিজস্ব প্রতিবেদক: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের যেন হতাশায় নিমজ্জিত কেননা প্রায় বিগত ৫ বছরে কোন কমিটি পুর্ণাঙ্গ হয়নি। সর্বশেষ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি পুর্নাঙ্গ হয়েছিল ২০১৫সালে (সাইফুল-অমিত কমিটি)। তারপর সম্মেলনের মাধ্যমে ২০১৭ সালে শাহিন-হালিম কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কিন্তু তারাও কমিটি পুর্নাঙ্গ করতে ব্যার্থ হয় এবং বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাদের কমিটি বিলুপ্ত করে ২০১৯ সালের ১৪ই জুলাই রবিউল ইসলাম পলাশকে সভাপতি এবং রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে সাধারণ সম্পাদক করে কমটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

কিন্তু এই কমিটি গঠনের পর থেকেই সাভপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উত্থাপন করে ক্যাম্পাসে তাদের অবাঞ্চিত ঘোষণা করে তাদের নিজ দলের কর্মীরায়।পরে তারা বিভিন্নভাবে ক্যাম্পাসে আসার চেষ্টা করলেই নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে ব্যার্থ হোন।এমনকি সভাপতি সাধারণ সম্পাদক গত বছরের ২১ জানুয়ারি ক্যাম্পাসে আসার চেষ্টা করলে বিদ্রোহী গ্রুপের নেতা লালন,আরাফাতদের আক্রমণের শিকার হউন এবং তারা সাধারণ সম্পাদককে মেরে রক্তাক্ত করেন। এর প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে এবং সেই তদন্ত কমিটি ক্যাম্পাসে এসে তদন্ত করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নিকট রিপোর্ট প্রদান করেন কিন্তু আজও কোন ব্যাবস্থা নেননি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি- সাধারণ সম্পাদক।

এই বিষয়ে তদন্ত কমিটির একজন বর্তমান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক শাহেদের সাথে কথা বলে জানা যাই তারা নিরপেক্ষ তদন্ত করে একটা রিপোর্ট সভাপতি সাধারণ সম্পাদক বরাবর জমা দিয়েছে তবে কেন তারা পদক্ষেপ নেয়নি সেটা তিনি জানেন নাহ।

এই বিষয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন আমরা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক এর সাথে কথা ক্যাম্পাস খুললেই অতি দ্রুত একটা সুন্দর পূর্নাঙ্গ কমিটি উপহার দিব। সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব এর সাথে কথা বললে তিনি জানান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার ব্যাপারে ইতিবাচক ক্যাম্পাস খুললেই আমরা খুব দ্রুত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনা মোতাবেক একটি পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করবো। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে একাধিক বার ফোন করা হইলেও তারা ফোন ধরেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *





related stories


error: Content is protected !!